জন্মদিনে আড়াই কেজি ওজনের সোনার শাড়ি উপহার!

0
51

ভালোবাসার কাছে যেন সব কিছুই তুচ্ছ। ভালোবাসার মানুষটিকে হাসি খুশি দেখতে অনেকেই অনেক কিছু করে থাকেন। কেউ দামি উপহার দেন কেউবা আবার অনেক দূরে কোথাও ঘুরতে যান। তবে সেটা কেবল তার ভালোবাসার মানুষকে ঘিরে। কিন্তু এবার ঘটল ভিন্ন ঘটনা। জন্মদিনে মন্দিরের দেবীর উদ্দেশে অর্পণ করা হয়েছে আড়াই কেজি ওজনের স্বর্ণের শাড়ি।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভির একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় তেলেঙ্গানা প্রদেশে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) ৮ বছরে পা দিয়েছেন কে চন্দ্রশেখর রাও। আর এই জন্মদিন উপলক্ষে মন্দিরের দেবীর উদ্দেশে অর্পণ করা হয় আড়াই কেজি ওজনের স্বর্ণের শাড়ি। সেই সঙ্গে ত্রিমাত্রিক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনীরও ব্যবস্থা করা হয়।

ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় তেলেঙ্গানা প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের ৬৮তম জন্মদিন পালন করতেই এই বিশাল আয়োজন করা হয়। হায়দরাবাদের একটি মন্দিরে দেবী ইয়েলাম্মার উদ্দেশে তৈরি করা হয়েছে আড়াই কেজি ওজনের সোনার শাড়ি।

প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী তালাসানি শ্রীনিবাস যাদবকে সঙ্গে নিয়ে দেবী ইয়েলাম্মার উদ্দেশে স্বর্ণের তৈরি ওই শাড়ি অর্পণ করেন মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রশেখর রাওয়ের মেয়ে কে কবিতা। তিনি নিজেও আইনসভার একজন সদস্য। চন্দ্রশেখর রাওকে তেলেঙ্গানা প্রদেশের সবচেয়ে বড় নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতেই জাঁকজমকর্পূভাবে জন্মদিন উদযাপন করা হচ্ছে।

বুধবার সকালে জন্মদিন উপলক্ষে হায়দারাবাদের একটি গুরুদুয়ারা মন্দিরে প্রার্থনার আয়োজন করেন প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী শ্রীনিবাস যাদব। এরপর বালকামপেট মন্দিরেও প্রার্থনা করা হয়। সেখানেই দেবীর উদ্দেশে স্বর্ণের তৈরি ওই শাড়ি অর্পণ করেন তিনি।

এরপর উজ্জায়িনী মহাকালী মন্দিরে সম্পন্ন করা হয় প্রার্থনার আনুষ্ঠানিকতা। পরে হায়দারাবাদের ক্লক টাওয়ার গির্জায়ও প্রার্থনা করেন প্রাণীসম্পদ মন্ত্রী। সেখান থেকে তিনি নামাপালি দরগায় যান এবং সেখানে একটি চাদর উপহার দেন। তারপর হায়দারাবাদের নেকলেস রোডের জলবিহারে মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের কর্মজীবন নিয়ে ত্রিমাত্রিক প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

এর আগে তেলেঙ্গানা আইনসভার স্পিকার ও প্রাদেশিক মন্ত্রীদের উপস্থিতিতে সেখানে কাটা হয় কেক। এছাড়া জন্মদিন উপলক্ষে রাজ্যব্যাপী এক কোটি চারা গাছ রোপণের কর্মসূচি পালন করেন মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো ও রাজ্যসভার সদস্য সন্তোষ কুমার। এছাড়া পার্শ্ববর্তী অন্ধ্রপ্রদেশের গোদাভারী জেলায় একটি নার্সারীর মধ্যে গাছের চারা কেটে মুখ্যমন্ত্রীর ছবি ফুটিয়ে তোলা হয়।

মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও রাজনীতি থেকে অবসরে যাচ্ছেন এবং ছেলে কে টি শর্মা রাওয়ের কাছে পদ ছেড়ে দিতে পারেন বলে সম্প্রতি গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়। তবে চলতি মাসের শুরুতে এসব গুঞ্জনকে গুজব হিসেবে উড়িয়ে দেন চন্দ্রশেখর রাও। আরো ১০ বছর বা তারও বেশি সময় তিনি মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যেতে চান বলে অনুষ্ঠানে জানান তিনি। আর এবার নিজের জন্মদিনও সে লক্ষ্যেই জাঁকজমকভাবে উদযাপন করছেন তিনি।