আমি বুঝলাম না, আমার বউ নাসিরের কাছে সুখে থাকবে মানেঃ রাকিব

0
15

বিয়ে করে বিপাকে পড়েছেন তারকা ক্রিকেটার নাসির হোসেন। ভালোবাসা দিবসে কেবিন ক্রু তামিমা তাম্মির সঙ্গে তাঁর বিবাহবন্ধনের ছবি অন্তর্জালে বেশ উষ্ণতা ছড়িয়েছে। কিন্তু সপ্তাহ না পেরোতেই নাসিরপত্নীর ‘সাবেক স্বামী’র দাবি, বিবাহবিচ্ছেদ ছাড়াই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন নবযুগল।

আজ শনিবার বিকেল ৩টা ৩৬ মিনিটে মুঠোফোনে তামিমার প্রথম স্বামী রাকিব হাসান দাবি করেন, আইনগতভাবে তাঁদের বিবাহবিচ্ছেদ ছাড়াই নাসিরের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছেন তামিমা। এ ব্যাপারে তামিমাকে ফোন করে কোনো সাড়া না পেয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন রাকিব।

এই প্রতিবেদকের কাছে তাঁদের কাবিননামা ও জিডির কপি পাঠিয়েছেন তামিমার প্রথম স্বামী।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে রাজধানীর উত্তরার এক রেস্তোরাঁয় বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সারেন নাসির। ১৭ ফেব্রুয়ারি ছিল এ যুগলের গায়েহলুদ। এর একদিন পর জাঁকজমকপূর্ণভাবে হয় তাঁদের বিবাহোত্তর সংবর্ধনা। সেই আনন্দের রেশে তাল কাটেন তামিমার প্রথম স্বামী রাকিব।

এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে নাসির ও রাকিবের কথোপকথনের অডিও ক্লিপ। ওই কথোপকথনে তামিমার প্রথম বিয়ের সত্যতা মেলে। নাসিরও স্বীকার করেন, সবকিছু জেনেই তামিমাকে বিয়ে করেছেন তিনি।

ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে মুঠোফোনে রাকিব হাসানকে কল করা হলে এনটিভি অনলাইনকে তিনি জানান, ডিভোর্স বা কোনো কিছু না জানিয়ে নাসিরকে বিয়ে করেছেন তাঁর স্ত্রী তামিমা। তিনি বলেন, ‘হঠাৎ করে শুনলাম নাসির আমার ওয়াইফের হাজব্যান্ড হয়ে গেছে। আমার বউয়ের সঙ্গে ডিভোর্স ছাড়া সে তামিমাকে বিয়ে করেছে। সে (তামিমা) আমাকে এখনো কোনো কাগজ পাঠায়নি।

হঠাৎ করে আমি শুনতেছি যে সে বিয়ে করে ফেলেছে। আমার এক বন্ধু বলতেছে, দেখেন তো রাকিব ভাই, তামিমা আপু তো নাসিরকে বিয়ে করে ফেলেছে। আমি নিজেও অবাক হয়েছি। পরে আমি তামিমাকে ফোন দিয়েছি, এসএমএস করেছি, সে কিছুর জবাব দেয়নি। পরে আমি উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি জিডি করেছি।

জিডি করার পর নাসির ফোন দিয়েছেন রাকিবকে। ওই ফোনের রেকর্ড এরই মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল। এ ব্যাপারে রাকিবের ভাষ্য, “খবরটি শোনার পর আমি তামিমার বাসায় লোক পাঠাই। কিন্তু তামিমার মা জানান, তিনি নাকি রাকিব নামের কাউকে চেনেন না।

পরে তাঁর মা পর্দার আড়ালে গিয়ে নাসিরকে সব জানান। এরপর নাসির কাল দুপুরে আমাকে ফোন দিয়েছেন। তিনি আমাকে ফোন দিয়ে বলেন, ‘আপনি কি চান না তামিমা সুখে থাকুক?’ আমি বুঝলাম না, আমার বউ তাঁর কাছে কেন সুখে থাকবে?”

‘আমি ২০১১ সালে তামিমাকে বিয়ে করেছি। তখন সে মাত্র এসএসসি পাস করে। এরপর আমি তাকে এইচএসসি ও অনার্স শেষ করাই। তার এই চাকরি পাওয়ার জন্যও আমি অনেক পরিশ্রম করেছি। আমি জানি না সে এটা কীভাবে করল। এখন আমি এই আইনি লড়াইটা চালিয়ে যাব’, যোগ করেন তামিমার প্রথম স্বামী।

এ প্রসঙ্গে নাসিরের বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে তাঁর মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত মেসেঞ্জারে খুদে বার্তা পাঠিয়েও সাড়া পাওয়া যায়নি নাসিরের।