মুজিব কোট পরবেন মোদির সফরসঙ্গীরা

0
13

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকালে তার সঙ্গী উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ঐতিহ্যবাহী মুজিব কোট পরিধান করবেন। ভারতের বিখ্যাত খাদি কাপড় দিয়ে এসব মুজিব কোট বানিয়েছে দেশটির খাদি এন্ড ভিলেজ ইন্ডাস্ট্রিজ কমিশন (কেভিআইসি)।

ভারতের প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর এক ঘোষণায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ উদযাপন করছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন সফরের আগে ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনের ইন্দিরা গান্ধী কালচারাল সেন্টার ১০০টি মুজিব কোট তৈরির অর্ডার দেয়। এই মুজিব কোট বঙ্গবন্ধুর ‘প্রতীকী পোশাক’ হিসেবে খ্যাত। ইতিমধ্যে কেভিআইসি ১০০টি মুজিব কোট সরবরাহ করেছে।

ভারতের খাদি ও গ্রামীণ শিল্প কমিশন (কেভিআইসি) এ জন্য ১০০টি মুজিব কোট ঢাকার ভারতীয় হাইকমিশনে সরবরাহ করেছে বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা আইএএনএস। ভারতীয় কয়েকটি সংবাদমাধ্যমেও খবরটি প্রকাশিত হয়েছে।

মোদি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর দিন ২৬ মার্চ ঢাকায় আসবেন। পরের দিনেও তার নানা কর্মসূচি থাকছে।

কেভিআইসির চেয়ারম্যান ভিনয় কুমার সাক্সেনা বলেন, ‘এ ধরনের ১০০ কোট আমরা তৈরি করেছি। এর অর্ডার দিয়েছিল ঢাকা হাইকমিশনের কালচারাল সেন্টার।’

বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ সমর্থকেরা বঙ্গবন্ধুর ব্যবহার করা এই কোটটিকে আদর্শের প্রতীক হিসেবে দেখেন।

মোদি এর আগেও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন আয়োজনে সংশ্লিষ্ট দেশের পোশাক ও ঐতিহ্যকে গুরুত্ব দিয়েছেন। ২০১৬ গোয়ায় একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে তাকে খাদির জ্যাকেটে দেখা গিয়েছিল৷

এবার বাংলাদেশের জাতির পিতার প্রতি সম্মান জানাতে তার প্রিয় পোশাক বেছে নিচ্ছেন মোদি।

বিশেষভাবে নকশাকৃত মুজিব কোটগুলো উচ্চমানের পলি খাদি কাপড় দিয়ে তৈরি। কালো রঙের মুজিব কোটগুলোতে ছয়টি বোতাম এবং নিচের দিকে সামনে দুটি পকেট রয়েছে। এছাড়া বুকের বামপাশে একটি পকেট রয়েছে। যেমনটা বঙ্গবন্ধু পরিধান করতেন। কোটগুলোর কভার বানানো হয়েছে পরিবেশবান্ধব খাদি কাপড়েই। এগুলো বহন করা হবে- বিশেষ নকশার প্লাস্টিক-মিশ্রিত হাতে তৈরি কাগজের ব্যাগে।

খাদি ও গ্রামোদ্যোগ কমিশনের চেয়ারম্যান জানিয়েছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বরাবরই কূটনৈতিক সফরে খাদিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেন। মহাত্মা গাঁধীর উত্তরাধিকারকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যই খাদির পোশাক পরেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বিদেশ সফরে যাওয়ার সময় সঙ্গে রাখেন খাদির তৈরি রুমাল এবং তা উপহার হিসেবে দেন। মুজিব জ্যাকেট বাংলাদেশে ঐতিহাসিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। এটা অত্যন্ত গর্বের বিষয় যে, প্রধানমন্ত্রী মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় এই খাদির জ্যাকেট পরা হবে। খাদির সবচেয়ে বড় ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডার প্রধানমন্ত্রী মোদি। তাঁর বাংলাদেশ সফরে খাদির মুজিব জ্যাকেট ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। এর মাধ্যমে সারা বিশ্বে এবং কূটনৈতিক মহলে খাদিকে তুলে ধরা যাবে।’