ভা’ইরাল ত’রুণী বাই’কার আ’সলে এ’কজন পু’রু’ষ

0
34

ছবি দেখলে যে কেউ তাকে উঠতি ব’য়সী একজন তরুণী মনে করে বি’ভ্রা’ন্ত হতে পারেন। তবে আদতে তিনি না’রী এবং ব’য়সে তরুণ নন। তার ব’য়স ৫০ বছর। আর তিনি একজন পুরু’ষ। জনপ্রিয় হওয়ার লো’ভে বিভিন্ন ফেসঅ্যাপ ও ফটোশ’প ব্যবহার করে এটা করতেন তিনি।

জাপানি এই ‘তরুণী’ বাইকারের ছবি এখন ভা’ইরা’ল। তবে আগে থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার অনুসারীর সংখ্যা অনেক। বিশেষ করে তরুণদের কাছে তিনি ব্যাপক জনপ্রিয়। তবে সম্প্রতি তার আসল পরিচয় প্রকাশ হওয়ার পর কিছুটা বি’পা’কেই পড়েছেন ব’য়োজ্যে’ষ্ঠ ওই ব্যক্তি।

দেখতে আ’কর্ষণীয় এই ‌‘তরুণী বাইকার’ যে প্রকৃতপক্ষে না’রীই নন তা প্রথম প্রকাশ করেন একজন টুইটার ব্যবহারকারী। তিনি টুইটারে দুটি ছবি প্রকাশ করে প্রকৃত ব্য’ক্তির পরিচয় তুলে ধরেন। এরপর তার অনুসারী ও অন্যান্যদের মধ্যে বি’ষয়টি নিয়ে ‘হৈ’চৈ পড়ে যায়।

আজু সাগা কিউকি নামে ওই বাইকারের টুইটারে অনুসারীর সংখ্যা বিশ হাজারের বেশি। নিয়মিত টুইটারে ছবি পো’স্ট করতেন। সেসব ছবিতে মোটরসাইকেলে ভিন্ন ভিন্ন আ’ঙ্গিকে দেখা যেত তাকে। সম্প্রতি এক টুইটে তিনি লিখেছিলেন, ‘মোটরসাইকেল নিয়ে চারপাশে ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসি আমি।’

ঘ’টনা উ’দঘা’টন হওয়ার আগ পর্যন্ত ‘তরুণী’ আর দেখতে আ’কর্ষণীয় হওয়ায় ওই ‘না’রী’ বাইকারের টুইটার অনুসারীর সংখ্যা হু হু করে বাড়তে শুরু করেছিল। তবে তার প্রকৃত পরিচয় ‘ভা’ইরা’ল হওয়ার পর জাপানের গণমাধ্যমগুলো তার বি’ষয়ে আরও ত’থ্য খুঁজে বের করার ব্যাপারে সচেষ্ট হয়।

তার প্র’কৃত পরিচয় পাওয়ার জন্য সচেষ্ট হওয়ার পর জানা যায় যে, ওই না’রী বাইকার আসলে একজন পঞ্চাশ বছর বয়সী পুরু’ষ। তার প্রকৃত পরিচয়ের বি’ষয়টি সবার জানাজানি হওয়ার পর এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘মানুষ তো সামাজিক মাধ্যমে পঞ্চাশ বছরের চাচাকে পছন্দ করবে না। তাই এটা করেছি।’