মামুনুলের ঘটনায় ভীষণ লজ্জা হচ্ছে : তথ্যমন্ত্রী

0
41

ঢাকা- নারায়ণগঞ্জের একটি রিসোর্টে হেফাজতের নেতা মামুনুল হকের ঘটনা এবং স্ত্রীর সঙ্গে ‘কথোপকথনের যে ফোনালাপ’ ছড়িয়েছে সে প্রসঙ্গে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, এসব ঘটনায় আমার লজ্জা হচ্ছে।

রোববার (৪ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

শনিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে এক নারীকে নিয়ে যাওয়ার পর স্থানীয়রা মামুনুল হককে অবরোধ করেন। সে সময় মামুনুল ওই নারীকে নিজের স্ত্রী পরিচয় দিলেও তার সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠে।

তবে হেফাজতে ইসলাম মামুনুলের পক্ষে আছে এবং তারা ওই ঘটনায় তাদের নেতাকে হয়রানি করা হয়েছে দাবি করে দেশের নানাস্থানে ভাঙচুর চালিয়েছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘হেফাজতে ইসলামের এই সমস্ত নেতাদের যারা সমর্থন করেন তাদের কেমন লাগছে জানি না, আমার ভীষণ লজ্জা লাগছে।

‘মুসলমান হিসেবেও খুব লজ্জা বোধ করছি। যিনি নিজেকে আলেম হিসেবে পরিচয় দেন, আলেমের লেবাস তার আছে বাহ্যিকভাবে, তিনি এই ধরনের কাজ করেছেন, কিন্তু ইসলাম তো এগুলো সমর্থন করে না।’

হাছান বলেন, ‘আসলে এই সমস্ত নেতৃবৃন্দ মামুনুল হকসহ যারা দেশে একটি বিশৃংখলা সৃষ্টি করতে অপচেষ্টা চালিয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডব চালিয়েছে, দেশের বিভিন্ন জায়গায় ঢাকা নারায়ণগঞ্জসহ তাণ্ডব চালিয়েছে, তাদের নেতৃত্ব নষ্ট এবং ভণ্ড, তার প্রমাণ হচ্ছে কালকের ঘটনা প্রবাহ।

‘মামুনুল হকরা ইসলামের ধ্বজা ধরে, ইসলামের লেবাস পরে আসলে কী করছেন- সেটি কালকে বেরিয়ে পড়েছে জনতা তাকে আটক করার প্রেক্ষিতে। আমি এজন্য মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষার্থীদের অনুরোধ জানাব এ সমস্ত নষ্ট এবং ভণ্ড নেতৃত্বকে বর্জন করার জন্য।’

হাছান মাহমুদ বলেন, করোনার মধ্যে যখন সবাই ঘরবন্দি তখন তিনি বিলাসবহুল রিসোর্টে গেছেন রিলাক্স করতে। এরা যে ইসলামকে নিজের স্বার্থে ব্যবহার করে এবং ভণ্ড লেবাস ধরে সেটার প্রমাণ হলো গতকালের ঘটনায়। যিনি নিজেকে আলেম হিসেবে পরিচয় দেন তিনি এ ধরনের কাজ করছেন। ইসলাম তো এগুলো অনুমোদন করে না। আজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংসদে বলেছেন, ওই নারী তার স্ত্রী নন। বৈধ স্ত্রী হিসেবে কোনো কাগজপত্র তার কাছে নেই। তাহলে কী দাঁড়ায়, তাই অনুরোধ জানাবো এই নষ্ট ও ভণ্ড নেতৃত্বকে বর্জন করার জন্য।