পাত্রীর খোঁজ মিলতেই গানের তালে তুমুল নাচ যুবকের

0
31

বিয়ে করতে গেলে উপযুক্ত পাত্রী খুঁজে পাওয়া খুবই মুশকিল। হয় পাত্রীর উপযুক্ত পাত্র পাওয়া যায় না, না হয় পাত্রের উপযুক্ত পাত্রী পাওয়া যায় না এমনটা তো অনেক শুনেছেন। তবে বিয়ের জন্য পাত্রী খুঁজে দিতে পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে শুনেছেন কি? কি শুনে অবাক হলেন নিশ্চয়? অবাক হওয়ারই কথা। তেমনটা হয়েছে ভারতের উত্তরপ্রদেশে।

জানা যায়, ভারতের উত্তরপ্রদেশে পুলিশের কাছে পাত্রী খুঁজে দেয়ার আবেদন জানিয়েছেন ২৬ বছর বয়সী এক যুবক। নাম তার আজিম। গত পাঁচ বছর ধরেই পরিবারের লোকজন আজিমের বিয়ের জন্য পাত্রী খুঁজছেন, কিন্তু তাতে সাফল্য মেলেনি।

আজিম জানান, তিনি বেকার নয়। রাজ্যের শামলি জেলার কাইরানা শহরে প্রসাধনীর দোকান আছে তার। কিন্তু তারপরও পাত্রী মিলছে না। আজিমের বিয়ের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তার দৈহিক উচ্চতা। আজিম মাত্র ২ ফুট লম্বা। আর এই লম্বার কারণেই বিয়ের পাত্রী পাচ্ছেন না বলে দাবি তার পরিবারের। তাই এবার পাত্রীর খোঁজে চিঠি লেখেন উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব এবং বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকেও তিনি চিঠি লেখেন।

এমনকি উত্তরপ্রদেশ পুলিশেও তার আর্জি জানান।পুলিশ, মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে একটা বউ চাওয়ার সমস্যা জানানোর পর এই বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে আসে। তারপরই তার জন্য আসে দু’দুটি পাত্রীর খোঁজ।

ভারতের গাজিয়াবাদের রেহানা আনসারি জীবনভর মানসুরির হাত ধরতে প্রস্তুত। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার খবর অনুযায়ী, রেহানা জানিয়েছেন, তাকে বিয়ে করতে পারলে আমি খুশিই হব। রাজি রেহানার বাবা-মাও। এমনকি উচ্চতার সমস্যা যেখানে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছিল, সেখানে রেহানাও মানসুরির উচ্চতারই। আরো এক পাত্রী তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন হোয়াটস অ্যাপে। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিওতে মানসুরিকে দেখে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

আপাতত দু’জনের মধ্যে কাকে নিজের জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নেবেন তার সিদ্ধান্ত ভার পড়েছে মানসুরির পরিবারের ওপর। আল্লাহর রহমতে তার জীবনের আইবুড়ো জীবন ঘুচতে চলেছে বলে মনে করেছেন তিনি। এতদিনের প্রয়াসের পর অবশেষে তিনিও বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হবেন ভেবেই আনন্দিত মানসুরি।

জানা যায়, ভারতের উত্তরপ্রদেশে পুলিশের কাছে পাত্রী খুঁজে দেয়ার আবেদন জানিয়েছেন ২৬ বছর বয়সী এক যুবক। নাম তার আজিম। গত পাঁচ বছর ধরেই পরিবারের লোকজন আজিমের বিয়ের জন্য পাত্রী খুঁজছেন, কিন্তু তাতে সাফল্য মেলেনি।

আজিম জানান, তিনি বেকার নয়। রাজ্যের শামলি জেলার কাইরানা শহরে প্রসাধনীর দোকান আছে তার। কিন্তু তারপরও পাত্রী মিলছে না। আজিমের বিয়ের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে তার দৈহিক উচ্চতা। আজিম মাত্র ২ ফুট লম্বা। আর এই লম্বার কারণেই বিয়ের পাত্রী পাচ্ছেন না বলে দাবি তার পরিবারের। তাই এবার পাত্রীর খোঁজে চিঠি লেখেন উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব এবং বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকেও তিনি চিঠি লেখেন।

এমনকি উত্তরপ্রদেশ পুলিশেও তার আর্জি জানান।পুলিশ, মুখ্যমন্ত্রীদের কাছে একটা বউ চাওয়ার সমস্যা জানানোর পর এই বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে আসে। তারপরই তার জন্য আসে দু’দুটি পাত্রীর খোঁজ।

ভারতের গাজিয়াবাদের রেহানা আনসারি জীবনভর মানসুরির হাত ধরতে প্রস্তুত। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার খবর অনুযায়ী, রেহানা জানিয়েছেন, তাকে বিয়ে করতে পারলে আমি খুশিই হব। রাজি রেহানার বাবা-মাও। এমনকি উচ্চতার সমস্যা যেখানে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছিল, সেখানে রেহানাও মানসুরির উচ্চতারই। আরো এক পাত্রী তার সঙ্গে যোগাযোগ করেন হোয়াটস অ্যাপে। তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিওতে মানসুরিকে দেখে বিয়ের প্রস্তাব দেন।

আপাতত দু’জনের মধ্যে কাকে নিজের জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নেবেন তার সিদ্ধান্ত ভার পড়েছে মানসুরির পরিবারের ওপর। আল্লাহর রহমতে তার জীবনের আইবুড়ো জীবন ঘুচতে চলেছে বলে মনে করেছেন তিনি। এতদিনের প্রয়াসের পর অবশেষে তিনিও বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হবেন ভেবেই আনন্দিত মানসুরি।