August 8, 2022

‘এখানে কিছু টাকা আছে, এটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে নিজ শয়নকক্ষ থেকে রিতা আক্তার নামে এক মাস্টার্স পরীক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।
এ সময় একটি চিরকুট পাওয়া যায়। সেখানে লেকা রয়েছে ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়, এখানে কিছু টাকা আছে, সেটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’

রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার শিবনগর ইউপির রাজারামপুর চামড়াগুদাম গ্রামে ওই পরীক্ষার্থীর নিজ শয়নকক্ষ থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত রিতা ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রাজারামপুর চামড়াগুদাম গ্রামের ইউপি সদস্য মো. মোশারফ হোসেনের তৃতীয় কন্যা। দিনাজপুর সরকারি কলেজের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্স ফাইনাল ইয়ারের (স্নাতকোত্তর শেষ বর্ষের ছাত্রী) পরীক্ষার্থী ছিলেন।

জানা গেছে, নিহত রিতা আক্তার প্রতিদিনের মতো গত শনিবার রাতে খাওয়াদাওয়া শেষে তার নিজ শয়নকক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। পরদিন রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মা মমতাজ বেগম তাকে ঘুম থেকে ডেকে তোলার জন্য একাধিকবার দরজার কড়া নাড়েন। কোনো সাড়া না পেয়ে দরজা খুলে শয়নকক্ষে প্রবেশ করেন। এ সময় ঘরের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মেয়ের লাশ ঝুলতে দেখেন। তার চিৎকারে বাবা মো. মোশারফ হোসেন ছুটে এসে ওড়না কেটে তার লাশ নিচে নামান। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতন্তের জন্য দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ফুলবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আশ্রাফুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। নিহতের ব্যবহৃত একটি স্মার্ট মোবাইল ফোনসহ একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। মোবাইলে কোনো সিমকার্ড ও মেমরি কার্ড ছিল না। চিরকুটে লেখা রয়েছে ‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়, এখানে কিছু টাকা আছে, সেটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও।’ কিন্তু আমরা সেখানে কোনো টাকা পাইনি। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।